বল টেম্পারিং’এর আসল নায়ক ওয়ার্নার!

স্পোর্টস ডেস্কঃ 

বল টেম্পারিংয়ের মূল ঘটনা শেষ হয়েছে কয়েকদিন হলো। শাস্তিও পেয়েছেন স্টিভেন স্মিথ, ডেভিড ওয়ার্নার ও ক্যামেরন ব্যানক্রফট। যেই শাস্তির মূল দলিল ছিল ক্রিকেট অস্ট্রেলিয়ার তদন্ত রিপোর্ট। সেখান থেকে জানা গেলো মূল দোষী আসলে ডেভিড ওয়ার্নার!

স্টিভেন স্মিথ অধিনায়ক হিসেবে ঘটনা রুখতে ব্যর্থ হওয়াতেই দায়টা বেশি পড়েছে তার ঘাড়ে। তবে তদন্ত রিপোর্টে স্মিথকে টেম্পারিংয়ের মূল পরিকল্পনাকারী ঠাওরানো হয়নি, মূল দায়ী ব্যক্তিটি ছিলেন ডেপুটি ডেভিড ওয়ার্নার! তার বিরুদ্ধে অভিযোগ আনা হয়েছে ৭টি। বাকি দুজনের বিরুদ্ধে অভিযোগ ছিল ৫টি।

ওয়ার্নারের বিরুদ্ধে আনা মূল অভিযোগগুলোঃ

১. পরিকল্পনা করেছিলেন কীভাবে বলের বিকৃতি ঘটাবেন।

২. জুনিয়র খেলোয়াড়কে নির্দেশ দিয়েছিলেন সেই পরিকল্পনা বাস্তবায়নের।

৩. পরিকল্পনা বাস্তবায়নে জুনিয়রকে শিখিয়েছিলেন কীভাবে এমনটি করা যায়।

স্মিথের বিরুদ্ধে মূল অভিযোগগুলোঃ

১. পরিকল্পনার সব কিছু জানতেন।

২. এমন পরিকল্পনা রুখতে কোনও পদক্ষেপ নেননি।

৩. বল বিকৃতি ঘটানোর সঙ্গে সম্পৃক্ত প্রমাণ মাঠেই গোপন রাখতে নির্দেশ দিয়েছিলেন।

ক্যামেরন ব্যানক্রফটের বিরুদ্ধে মূল অভিযোগগুলোঃ

১. পরিকল্পনা সম্পর্কে জানতেন, হলুদ সদৃশ শিরিস কাগজ ব্যবহার করেছিলেন তিনি।

২. নির্দেশনা অনুযায়ী পরিকল্পনা বাস্তবায়ন করেছিলেন।

৩. প্রমাণ মাঠেই গোপন রাখার চেষ্টা করেছিলেন।

বিষয়গুলো এর আগে আরও জোড়ালো করে দিয়েছেন অস্ট্রেলিয়ার ক্রিকেট ধারাভাষ্যকার জিম ম্যাক্সওয়েল। ম্যাক্সওয়েল রেডিওতেই বলেছেন, ‘ওয়ার্নারের নেতৃত্বেই তৈরি হয়েছিল বল-বিকৃতির পরিকল্পনা। কেপ টাউন টেস্টে ড্রেসিংরুমে ব্যানক্রফটের সঙ্গে বসেছিল ওয়ার্নার। তখন ওরা এই পরিকল্পনা নিয়ে আলোচনা করে।’

তিনি আরও জানিয়েছেন, ওয়ার্নার আর ব্যানক্রফট যখন বল-বিকৃতির ঘটনা নিয়ে আলোচনা করছিলেন, তখন পাশেই বসে ছিলেন স্টিভ স্মিথ। দু’জনের দিকে তাকিয়ে স্মিথ নাকি প্রশ্ন করেন, ‘তোমরা কী বলছো? আমি জানতেও চাই না।’ বলে স্মিথ মাঠে চলে যান। ম্যাক্সওয়েলের দাবি, ওয়ার্নারের নির্দেশেই পকেটে শিরিস কাগজ নিয়ে মাঠে যান ব্যানক্রফট! যার প্রমাণ পাওয়া গেছে ক্রিকেট অস্ট্রেলিয়ার তদন্তে।

কমেন্টস

কমেন্টস