২০৪০ এর মধ্যে বিশ্বে পারমাণবিক যুদ্ধ বেধে যাবে!

আন্তর্জাতিক ডেস্কঃ

উত্তর কোরিয়ার শাসক কিম জং উন ট্রাম্পকে হুঁশিয়ারি দিয়ে একবার বলেছিলেন, ‘‘আমার টেবিলের নিচে নিউক্লিয়ার বোতাম থাকে৷ একবার প্রেস করলে ওই বোমা আমেরিকাকে শেষ করে দেবে৷’’ পাল্টা হুংকার ছেড়েছিলেন ট্রাম্প৷ বলেছিলেন, তিনিও চাইলে নিউক্লিয়ার বোতাম টিপে উত্তর কোরিয়াকে ধুলিসাৎ করে দিতে পারেন৷ দুই রাষ্ট্রনেতার রণংদেহি মেজাজ দেখে গোটা বিশ্ব আশঙ্কা করতে শুরু করেছিল এই বুঝি কিম আমেরিকাতে পারমাণবিক বোমা ফেলল৷

কিন্তু তারা যতটা গর্জে উঠেছে, বাস্তবে সেরকম কিছুই হয়নি৷ বিশ্বের সৌভাগ্য দুই দেশের মধ্যে পারমাণবিক যুদ্ধ বাধেনি৷ কিন্তু এমনটা ঘটতে খুব বেশি আর দেরি নেই৷ আর ২২ বছরের মধ্যে পারমাণবিক যুদ্ধ বেধে যাবে৷ তেমনটাই দাবি আমেরিকান থিংক ট্যাঙ্কদের৷

আন্তর্জাতিক নানা ঘটনার বিচার বিশ্লেষণ করে আমেরিকান থিংক ট্যাঙ্করা জানিয়েছেন, ২০৪০ সালের মধ্যে একটা নিউক্লিয়ার যুদ্ধ বেধে যেতে পারে৷ কেন তারা এমনটা জানিয়েছেন? তাদের মতে, যেভাবে ড্রোনের মতো স্বয়ংক্রিয় টেকনোলজির ব্যবহার বাড়ছে সেখান থেকেই এই আশঙ্কা তারা করছেন৷ তাঁরা তাদের রিপোর্টে জানিয়েছেন, এইভাবে ড্রোনের হামলা বাড়তে বাড়তে একটা সময় একে অপরকে নিউক্লিয়ার বোম ছুড়ে মারবে দেশগুলি৷

আমেরিকান থিংক ট্যাঙ্করা জানিয়েছেন, যে জিনিস যত সহজ মনে হয় সেখান থেকেই নানা বিপত্তির শুরু হতে পারে এবং একটা জটিল আকার ধারণ করে নিতে পারে৷ তাদের মতে, প্রতিহিংসার বশে নিউক্লিয়ার অস্ত্রের প্রয়োগ আরও বাড়বে৷ এখন বিশ্বের অনেক দেশের হাতে নিউক্লিয়ার অস্ত্র রয়েছে৷ ফলে আগামিদিনে দেশগুলির মধ্যে কূটনৈতিক স্থিতাবস্থা বজায় রাখা কঠিন হয়ে পড়বে৷ পারমাণবিক যুদ্ধের ঝুঁকি কমাতে তাই প্রত্যেকটি দেশকে উদ্যোগী হতে হবে৷

কমেন্টস

কমেন্টস