খোলা মেলা দৃশ্য থাকায় সৃজিতকে জয়ার না

বিনোদন ডেস্কঃ

সৃজিতের নতুন ছবি ‘চৌরঙ্গী’তে মূল চরিত্রে থাকার কথা ছিলো জয়া আহসানের। ছবির মূল ‘কবরী’ চরিত্রে অভিনয় করবেন তিনি জানিয়ে ছিলেন। কিন্তু ২৪ জুন এই অভিনেত্রী জানান ছবিটিতে তিনি অভিনয় করছেন না। ‘খোলামেলা’ দৃশ্য বেশি থাকায় তিনি ছবিটিতে অভিনয় না করার সিদ্ধান্ত নিয়েছেন বলে সাংবাদিকদের জানান। নতুন খবর হলো সৃজিতের সঙ্গে ঝামেলা থাকায় জয়া ছবিটিতে অভিনয় করছেন না বলে দাবি করেছে কলকাতার প্রভাবশালী একটি সংবাদমাধ্যম। 

৩ জুলাই মঙ্গলবার ওই সংবাদমাধ্যমের বিশেষ প্রতিবেদনে দাবি করা হয় সৃজিতের সঙ্গে ঝামেলার কারণেই জয়া আহসান ছবিটি থেকে নিজেকে সরিয়ে নিয়েছেন। তার জায়গাতে এসেছেন অভিনেত্রী স্বস্তিকা মুখোপাধ্যায়। ছবির নাম বদলে রাখা হয়েছে ‘শাহজাহান রিজেন্সি’। ঢেলে সাজানো হচ্ছে ছবির অন্য চরিত্রও।

এর আগে ২৪ জুন জয়া গণমাধ্যমকে জানিয়েছিলেন ছবিটিতে ‘খোলামেলা’ দৃশ্য বেশি থাকায় তিনি এতে অভিনয় না করার সিদ্ধান্ত নিয়েছেন। তিনি বলেছিলেন আমি ছবিটিতে কেন অভিনয় করব না সে বিষয়টি সৃজিত বুঝেছে।

আর আলোচনার মাধ্যমেই সিদ্ধান্ত গ্রহণ করা হয়েছে। তাই এ নিয়ে কনফিউশনের কিছু নেই। চিত্রনাট্যটি পড়ার পর বুঝেছি ছবিটিতে অনেক বেশি খোলামেলা দৃশ্য রয়েছে। আর এ বিষয়ে আমার কিছু মানসিক ব্লক রয়েছে।

‘চৌরঙ্গী’তে অভিনয় প্রসঙ্গে জয়া বলেছিলেন, ‘চৌরঙ্গী রিমেক হচ্ছে না। কিন্তু তারপরও দেখছি অনেকেই বলছেন ছবিটি রিমেক হচ্ছে। এটা ঠিক নয় সেই সময়ের মানুষদের জীবনযাত্রা আর এখনকার সমাজের মানুষদের জীবনযাত্রায় অনেক পার্থক্য। তাই এখন গল্প বলার ঢংটাই আলাদা হবে। এই সময়ের প্রেক্ষাপটেই তৈরি হবে ‘চৌরঙ্গী’। তাই ছবিটিতে কাজ করছি।

সিনেমাটি নির্মাণ প্রসঙ্গে সৃজিত বলেন, ‘আমরা পুরানো চৌরঙ্গী রিমেক করছি না। এটা অন্য রকম ছবি হবে। এখানে গল্প বলার ধরনটাই হবে আলাদা। এত বছর পর হোটেল সংস্কৃতির চিত্রটা পাল্টে গেছে। আমাদের গল্পটা ২০১৮ সালের প্রেক্ষাপটে তৈরি হবে।

ছবিটির একটা দৃশ্যও ধারণ হয়নি। কিন্তু তার মধ্যেই বহুবার শিরোনামে চলে এসেছে সৃজিতের ‘চৌরঙ্গী’ থেকে নাম বদলে ‘শাহজাহান রিজেন্সি’ হওয়া ছবিটি। জুলাইয়ের শেষেই শুরু হচ্ছে ছবির শুটিং।

মণিশংকর মুখোপাধ্যায়ের ‘চৌরঙ্গী’ উপন্যাস প্রকাশিত হয় ১৯৫৫ সালে। উপন্যাসের প্রেক্ষাপট গত শতকের পঞ্চাশ দশকের কলকাতার চৌরঙ্গী অঞ্চল। কলকাতার সমাজের দারিদ্র্য এই উপন্যাসে স্পষ্টভাবে প্রতিফলিত হয়েছে। কাহিনির কেন্দ্রে রয়েছে প্রেম।

এই প্রেম হোটেলের অতিথি ও কর্মচারীদের মধ্যে দেখানো হয়েছে এবং এর বিয়োগান্তক পরিণতি রয়েছে। ষাটের দশকের শেষ ভাগে জনপ্রিয় এই উপন্যাস অবলম্বনে সিনেমা নির্মাণ হয়। এতে অভিনয় করেছিলেন উত্তম কুমার। ছবিটি তখন সুপারহিট হয়েছিল। সৃজিতের জন্য ‘লাকি অ্যাকটর’ হিসেবে খ্যাত প্রসেনজিৎ চট্টোপাধ্যায় ছবিটিতে স্যাটা বোসের চরিত্র করার কথা ছিল। কিন্তু বয়সে মানাবে না যুক্তি দিয়ে ছবি থেকে নাম কাটিয়ে নেন প্রসেনজিৎ। এরপর নাম কাটিয়ে নেন সৃজিতের আরেক ফেবারিট যিশু সেনগুপ্তও। শিডিউলের সমস্যার কারণ ছাড়া যিশুর সাম্প্রতিক শারীরিক অসুস্থতার বিষয়টি কারণ হিসেবে দেখান।

নতুন করে চিত্রনাট্য সাজানোর পর এখন এই ছবিতে যে তারকারা কাজ করবেন বলে চূড়ান্ত হয়েছে, তা হলো ঋতুপর্ণা সেনগুপ্ত, আবির চট্টোপাধ্যায়, অনির্বাণ ভট্টাচার্য্য, রুদ্রনীল ঘোষ, পরমব্রত চট্টোপাধ্যায়, কাঞ্চন মল্লিক ও সুজয় প্রসাদসহ আরও অনেকই। শ্রী ভেঙ্কটেশ ফিল্মসের পাশাপাশি এই ছবির আরেক প্রযোজনা প্রতিষ্ঠান সৃজিত মুখোপাধ্যায়ের ম্যাচকট প্রোডাকশন। এর সংগীত পরিচালনা করবেন অনুপম রায়। ১৯৬৮ সালে ‘চৌরঙ্গী’ উপন্যাস অবলম্বনে নির্মিত হয়েছিল চলচ্চিত্রটি।

কমেন্টস

কমেন্টস