রাবিতে শিবির সন্দেহে সাধারণ শিক্ষার্থীকে বেদম প্রহার

ডেইলি মিরর ২৪ ডেস্কঃ

সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ফেসবুকে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাকে নিয়ে ‘কটূক্তি’ করার অভিযোগে এবং শিবির সন্দেহে রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ে এক শিক্ষার্থীকে মারধর করেছে বিশ্ববিদ্যালয়ের ছাত্রলীগের নেতাকর্মীরা।

বুধবার বেলা সাড়ে ১২টার দিকে বিশ্ববিদ্যালয়ের সিনেট ভবন চত্বরে শেখ জসিম উদ্দিন বিজয় নামে আরবি বিভাগের তৃতীয় বর্ষের ওই শিক্ষার্থীকে মারধর করা হয়। মারধরের ফলে কোটা সংস্কার আন্দোলনে সক্রিয় ভূমিকায় থাকা জসিমের মুখ ও হাত ফুলে গেছে। বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রক্টর দপ্তরে তাকে প্রাথমিক চিকিৎসা দেয়া হয়েছে।

প্রত্যক্ষদর্শীরা জানান, নিজ বিভাগের টিউটোরিয়াল পরীক্ষায় অংশ নিতে বুধবার সকাল ১১টার দিকে বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রধান ফটক দিয়ে ক্যাম্পাসে ঢুকছিলেন বিজয়। সিনেট ভবনের সামনে আসলে তাকে আটক করে ছাত্রলীগের নেতাকর্মীরা। তখন তাকে ফেসবুকে দেওয়া স্ট্যাস্টাসের কথা জিজ্ঞেস করে মারধর করা হয়। এসময় খবর পেয়ে বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রক্টর অধ্যাপক লুৎফর রহমান সেখানে গেলে বিজয়কে প্রক্টরের হাতে তুলে দেয় ছাত্রলীগের নেতাকর্মীরা। পরে তাকে প্রক্টর দপ্তরেই তাকে প্রাথমিক চিকিৎসা দেওয়া হয়।

বিশ্ববিদ্যালয় শাখা ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক ফয়সাল আহমেদ রুনু বলেন, ‘ফেসবুকে প্রধানমন্ত্রীকে নিয়ে কটুক্তি করায় আমরা তাকে জিজ্ঞাসাবাদ করি। জিজ্ঞাসাবাদে আমরা জানতে পারি তার সাথে শিবিরের সম্পৃক্ততা আছে। তখন আমরা তাকে বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রক্টরের কাছে দিয়ে দেই।’

বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রক্টর অধ্যাপক লুৎফর রহমান বলেন, ‘বিজয়কে প্রক্টর দপ্তরে প্রাথমিক চিকিৎসা দেওয়া হচ্ছে। পুলিশের সাথে কথা বলে পরে তার বিরুদ্ধে ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।’

এদিকে, বিশ্ববিদ্যালয়ে কোটা সংস্কার আন্দোলনকারীরা বুধবার পুনরায় বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রশাসন ভবনের সামনে অবস্থান কর্মসূচির ঘোষণা দিলেও বৃষ্টির কারণে কর্মসূচি পালন করতে পারেনি।

কমেন্টস

কমেন্টস