যে স্কুলে দুই হাতে লিখে শত শত শিক্ষার্থী

আন্তর্জাতিক ডেস্কঃ

মধ্যপ্রদেশের পূর্ব প্রান্তে অবস্থিত সিঙ্গারৌলি জেলা  শিক্ষার্থীদের দুই হাতে লেখার রেওয়াজ করানো হয়। বিদিশার ছোটা হাভেলি এলাকায় অবস্থিত বিনা বাদিনী পাবলিক স্কুল বুধেলা এই কার্যক্রম করানো হয়। যেখানের প্রায় ৩০০ জন পড়ুয়া সকলেই দুই হাতে একইসঙ্গে সমানভাবে লিখতে পারে। ঠিক থ্রি ইডিয়টস সিনেমার ভাইরাসের মতো।

স্কুলের অধ্যক্ষ এবং প্রতিষ্ঠাতা প্রাক্তন সেনা জওয়ান ভিপি শর্মা বলেন, এর পিছনে দেশের প্রথম রাষ্ট্রপতি ডাঃ রাজেন্দ্র প্রসাদের অনুপ্রেরণা রয়েছে বলে জানিয়েছেন তিনি। তাঁর কথায়, “আমাদের প্রথম রাষ্ট্রপতি ডাঃ রাজেন্দ্র প্রসাদ একসঙ্গে দুই হাতে লিখতে পারতেন। আমিও তা শিখেছিলাম। সেটাই আমার স্কুলের ছেলেমেয়েদের শেখাচ্ছি।”

স্কুলে ভর্তি হওয়ার প্রথম দিকেই বিশেষ গুরুত্ব দেওয়া হয় এই দুই হাতে লেখার বিষয়টিতে। ৪৫ মিনিটের ক্লাসের মধ্যে ১৫ মিনিট ব্যয় করা হয় হাতের লেখা শেখাতে। দুই হাতে লেখার দক্ষতা বাড়াতে নিয়মিত যোগা ক্লাস করানো হয়। যার ফলে খুব সহজেই দুই হাতে একইসঙ্গে লিখতে অভ্যস্ত হতে পারে। আরও উল্লেখযোগ্য বিষয় হচ্ছে, এই স্কুলের পড়ুয়ারা কেবলমাত্র হিন্দি বা ইংরেজি ভাষাতেই লিখতে পারে এমন নয়। উক্ত দুই ভাষা সহ উর্দু, আরবি, রোমান এবং সংস্কৃত ভাষাতেও দক্ষ। এই ছয়টি ভাষাতেই তারা দুই হাতে একইসঙ্গে লিখতে পারে।

চিকিৎসকদের মতে এই ধরণের মানুষেরা যারা দুই হাতেই একসঙ্গে লিখতে পারে তাদের মস্তিষ্ক বিশেষভাবে বিকশিত হয়। অন্যদের তুলনায় তাদের আইকিউ লেভেল অনেক বেশি থাকে। মস্তিষ্কের স্নায়ুগুলিও খুব সক্রিয় হয়। যদিও পড়ুয়াদের মতে দুই হাতে একসঙ্গে লিখতে সক্ষম হওয়ায় তাদের সুবিধা হয় পরীক্ষার সময়ে। তিন ঘণ্টার পরীক্ষা দেড় ঘণ্টায় শেষ করে ফেলা যায়।

১৯৯৯ সালে যাত্রা শুরু করেছিল প্রাক্তন সেনা জওয়ান ভিপি শর্মার এই ভারতের বীনা বাদিনী পাবলিক স্কুল বুধেলা।

কমেন্টস

কমেন্টস